Header Ads

সিমের ফুল

সিমের ফুল
এলাকাটি শহর বলা যায়না, গ্রাম বাংলার রূপে অপরূপ সাজানো চারিদিক।
সন্ধ্যা হলেই হুক্কাহুয়া শিয়ালের ডাক।
দুই পাশে বয়ে চলেছে বালুনদী আর শীতলক্ষ্যা।
বালুনদী আর শীতলক্ষ্যা নদীতে জাহাজ চলে,
ছোট ছোট নৌকায় মানুষ পারাপার করে কাক ডাকা ভোর থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত।
সবুজে সবুজ আর সবুজ শাক সব্জি গাছপালা ।
একটু হেটে আসলেই রাস্তা।
রাস্তার দু'পাশে গাছ, ধান ক্ষেত  ডোবা নালা পুকুর।
কি অপরূপ ছিল সে দৃশ্য।
প্রায়ই জাল দিয়ে ধরা হতো তরতাজা টাটকা মাছ।
লাউয়ের মাচায় সারি সারি বাহারী লাউ।
সবুজ ডগায় সিমের ফুল কি সুন্দর লাগতো ।
শরতের শুভ্র সকালে কাশফুলে ছেয়ে যায় চারিদিক।
সিমের ফুল

 মৃদু বাতাসে ধানের শীষ  দোল খেতো , ঘাস ফড়িং আর প্রজাপতি নানান রঙে রঙিন করতো মন।
দেখতে দেখতে চোখ পড়ে যায় হায়নার দলের।
উন্নয়নের লোভ দেখায় ওরা ।
এতো কষ্ট করে ফসল ফলিয়ে কি লাভ?  কয় টাকাই বা দাম?
কত কষ্ট, কত শ্রম, সোনার শরীর পুড়ে ছাই করে কি পাও? কি দরদ?
চড়া দামে জমি ক্রয়ের লোভ দেখায় ওরা।
বসে বসে খাবে আর মজা করবে।
একটু একটু করে কিনে নেয় সব জমি।
ভরাট হয়ে যায় রাতারাতি সব জমি।
নগদ টাকার নেশায় সব ভুলে যায় বোকা লোকেরা।
সবুজ আর সবুজ নেই, ধুধু বালু আর বালু।
নদীর পারে জাহাজ বানানোর ধুম৷
কোকিল শ্যামা ঘুঘুর ডাক আর শোনা যায় না লোহা লক্কড়ের  ঝনঝনানিতে ।
 বড় বড় ভ্যান গাড়ির ভর সহ্য করতে পারে না ছোট রাস্তা।
রৌদ্রের দুপুরে ঝাঁপিয়ে পরার পুকুর আজ ধুধু বালুর মাঠ।
খেলার মাঠে এখন আর খেলা হয় না দাড়িয়াবান্ধা, ছি বুড়ি, গোল্লাছুট আর ফুটবল।
এখন সবাই স্বপ্ন দেখে বড় বড় ইমারতের।
আটতলা দশ তলায় বসে স্বপ্ন দেখবে আর হাওয়া খাবে।
জানিনা সে হাওয়ার পেট ভরবে না কি ? 
কিন্তু যা ধ্বংস হয়ে গেলো চিরতরে তা কি ফিরে পাওয়া যাবে?
নিজের চোখে দেখা যে স্মৃতি তাই তো বিশ্বাস করতে পারি না।
তবে কি তোমরাও একদিন হারিয়ে যাবে ভীনদেশী লোকেদের ভিরে?
যেমন হারিয়ে গেলো সবুজ শ্যামল প্রকৃতি।
সিমের ফুল


No comments

Powered by Blogger.